‘স্যালুট’ বাংলাদেশ,‘স্যালুট কাউন্সিলর খোরশেদ: ক্লাভেরেন

0
127

করোনাভাইরাস পরিস্থিতিতে নারায়ণগঞ্জ সিটি করপোরেশনের ১৩ নম্বর ওয়ার্ড কাউন্সিলর মাকসুদুল আলম খন্দকার খোরশেদের মানবসেবা ও কর্মগুণে মুগ্ধ হয়ে বাংলাদেশকে ‘স্যালুট’ জানিয়েছেন নেদাল্যান্ডসের রাজনীতিবিদ জোরাম ভ্যান ক্লাভেরেন।

বুধবার (২২ এপ্রিল) রাত ১১টার দিকে মুসলিম ধর্ম গ্রহণ করা ওই রাজনীতিবিদ তার জোরাম ভ্যান ক্লাভেরেন নামক ফেসবুক পেজে মাসদাইর শ্মশানের একটি শেষকৃত্যের তিনটি ছবি পোস্ট করেন। তার সঙ্গে বাংলাদেশের প্রশংসা করে একটি স্ট্যাটাসও লিখেন। তার এই স্ট্যাটাসে ১৪ হাজার লাইক, ১১০০ কমেন্ট ও ৭ হাজার ২০০ মানুষ শেয়ার করেছেন।

জোরাম ড্যানের এই স্ট্যাটাস সম্পর্কে জানতে পেরে কাউন্সিলর মাকছুদুল আলম খন্দকার খোরশেদ ২২ এপ্রিল রাতেই নিজ ফেসবুক আইডিতে সেট শেয়ার করেন। ইতিমধ্যে এই পোস্টটি সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকে ভাইরাল হয়েছে।

জোরাম ভ্যান ক্লাভেরেন-এর পোস্ট করা শ্মশানের ওই ছবির একটিতে দেখা গেছে, নারায়ণগঞ্জ সিটি করপোরেশনের কাউন্সিলর মাকসুদুল আলম খন্দকার খোরশেদ মারা যাওয়া হিন্দু সম্প্রদায়ের এক ব্যক্তির শেষকৃত্যের জন্য মরদেহ বয়ে নিয়ে আসছেন, আরেকটিতে দেখা যাচ্ছে একই ব্যক্তিকে চিতায় উঠিয়ে শেষকৃত্যের প্রস্তুতি নিচ্ছে এবং সর্বশেষ মৃত ব্যক্তির মুখাগ্নি করছেন। এ সময় উপস্থিত ছিলেন তার টিমের অন্য সদস্যরা।

জোরাম ভ্যান ক্লাভেরেন তার পোস্টে লেখেন, এই ছবিগুলো বাংলাদেশ থেকে নেওয়া। এখানে একজন হিন্দু ভাই মারা গেছেন। কিন্তু তার তার পরিবারের কেউ অন্ত্যেষ্টিক্রিয়া করতে আসেনি। তবে, তার শেষকৃত্য সম্পন্ন করেছেন একদল মুসলিম। এটাই সম্প্রীতি ও ইসলামের শিক্ষার সৌন্দর্য। এমন একটি খবর কিছুদিন আগে আমি ভারতেও পড়েছিলাম।

তিনি আরও লেখেন, আমি বাংলাদেশ সম্পর্কে তেমন ভালো করে কিছু জানি না। যতটুকু জানি তা হচ্ছে, এটি একটি মুসলিম সংখ্যাগরিষ্ঠ দেশ। ১৬৫ লাখ জনগোষ্ঠীর দেশটি তেমন ধনীও নয়। তবে, তাদের সমুদ্রের মত একটা হৃদয় রয়েছে। যার কারণে তারা প্রায় মিলিয়ন রোহিঙ্গা শরণার্থীকে আশ্রয় দিতে পেরেছে। আমি এই দেশ এবং দেশের এই মানুষগুলোকে ‘স্যালুট’ জানাই।

এছাড়াও জোরাম ভ্যান ক্লাভেরেন তার ওই লেখার সর্বশেষ লাইনটিতে লিখেছেন, ভারত কি তাদের (বাংলাদেশ) কাছ থেকে কিছু শিক্ষা গ্রহণ করবে!’

একজন বিদেশি রাজনীতিবিদের ফেসবুক পেইজে নিজের প্রশংসাসহ বাংলাদেশের প্রতি সম্মানবোধ দেখে গর্বিত কাউন্সিলর খোরশেদ। পাশাপাশি কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করেন জোরাম ভ্যান ক্লাভেরেনের প্রতি।

এ ব্যাপারে অনুভূতি প্রকাশ করতে গিয়ে সময় নিউজকে কাউন্সিলর খোরশেদ বলেন, করোনাভাইরাস পরিস্থিতির শুরু থেকেই আমি মানুষের সেবায় নিয়োজিত আছি। কে হিন্দু, কে মুসলিম সেটা দেখছি না। আমি দেখছি মানুষ হিসেবে। মানুষ পর পর চারবার ভোট দিয়ে আমাকে বিপুল ভোটের ব্যবধানে কাউন্সিলর নির্বাচিত করেছেন। তাদের প্রতি ভালোবাসা, কৃতজ্ঞতা এবং দায়িত্ববোধ থেকেই আমি মৃত্যু ভয়কে উপেক্ষা করে জীবনের ঝুঁকি নিয়ে মানুষের সেবায় নিজেকে আত্মসমর্পণ করেছি।

খোরশেদ বলেন, এখন রাজনীতি করার সময় নয়। এখন সময় প্রতিদান দেবার। এতে যদি আমার মৃত্যুও হয়, সেই মৃত্যু আমার জন্য হবে প্রাপ্তি।

তিনি বলেন, আমি ৯ মার্চ থেকে লিফলেট বিতরণের মাধ্যমে করোনার বিরুদ্ধে কাজ শুরু করি। ৬০ হাজার স্যানিটাইজার নিজের অফিসে ও বাড়িতে বানাই। ৩০ মার্চ লাশ দাফনের জন্য আগ্রহ প্রকাশ করে আবেদন করি ডিসির কাছে। জেলা প্রশাসকের অনুমতি পেয়ে ৯ এপ্রিল থেকে দাফন শুরু করি। আজ পর্যন্ত ১৮ জনের দাফন ও হিন্দু সম্প্রদায়ের ৫ জনের সৎকার করেছি। করোনায় মৃত্যু হওয়া এই ২৩ জনের দাফন ও সৎকার করতে পেরে আত্মতৃপ্তির কথা উল্লেখ করে এই সেবাকাজ করোনার শেষ দিন পর্যন্ত চালিয়ে যেতে চান বলে জানান কাউন্সিলর খোরশেদ।

জোরাম ভ্যান ক্লাভেরেন পরিচিতি:

১৯৭৯ সালের ২৩ জানুয়ারি আমস্টারডামে জন্মগ্রহণ করেন। তিনি একজন উদার সংস্কারপন্থী খ্রিস্টান হিসাবে বেড়ে ওঠেন এবং ভিইউ বিশ্ববিদ্যালয় আমস্টারডাম থেকে ধর্মবিদ্যা নিয়ে পড়াশোনা করেন এবং একজন শিক্ষকতাও করেছেন। বর্তমানে জোরাম ভ্যান ক্লাভেরেন একজন আলোচিত ডাচ রাজনীতিবিদ। তিনি দেশটির ফ্রিডম পার্টির সদস্য হিসাবে তিনি ১ জুন ২০১০ থেকে ২১ মার্চ ২০১৪ পর্যন্ত নেদারল্যান্ডের একজন সংসদ সদস্য ছিলেন। পরবর্তীকালে ২৩ মার্চ, ২০১৩ এ তার মেয়াদ শেষ না হওয়া পর্যন্ত তিনি স্বতন্ত্র পদেই ছিলেন।

জোরাম ভ্যান ক্লাভেরেন বর্ণবিভেদলোপকরণ কর্মসংস্থান থেকে জনসংখ্যার সঠিক অনুপাতকরণ, সমতাবাদ, মুক্তি ইত্যাদি বিষয়ে সোচ্চার ছিলেন। ২৪ মার্চ ২০১১ থেকে ১১ জুন ২০১৪ পর্যন্ত তিনি ফ্লেভোল্যান্ডের প্রাদেশিক সদস্যও ছিলেন। পাশাপাশি মুসলিম বিরোধী মন্তব্যের জন্য জোরাম ভ্যান ক্লাভেরেন ব্যাপক পরিচিত ছিলেন।

তবে, অক্টোবর ২০১৮ সালে তিনি একটি ইসলাম বিরোধী বই লেখার অর্ধেক পথে ইসলাম ধর্ম গ্রহণ করেন। ইসলাম ধর্ম গ্রহণের পরও তিনি তার বইটি পুনরায় লেখার সিদ্ধান্ত নেন। (“Apostate from Christianity to Islam in times of secularization and terror”) শিরোনামে তার বইটি ডাচ ও ইংরেজি ভাষায় প্রকাশিত হয়।

২১ মার্চ ২০১৪-এ, ভ্যান ক্লাভেরেন ঘোষণা করেন যে তিনি ফ্রিডম পার্টি থেকে বিদায় নিবেন, কারণ তিনি আর এই দলের নীতিতে বিশ্বাসী নন। ২০১৪ সালের স্থানীয় নির্বাচনের পরে নেদারল্যান্ডসে মরোক্কো সংখ্যালঘুদের সম্পর্কে দলীয় নেতা গের্ট ওয়াইল্ডারের মন্তব্যের জেরেই এই সিদ্ধান্ত নেন তিনি। তবে, ভ্যান ক্লাভেরেন স্বতন্ত্র সংসদ সদস্য হিসাবে তখনও ছিলেন। ২০১৪ সালের মে মাসে জোরাম ভ্যান ক্লাভেরেন, লুইস বোন্টেস এবং জোহান ড্রিসেন একত্রিতে ‘ফর দা নেদারল্যান্ডস’ (ভিএনএল) নামে একটি নতুন রক্ষণশীল রাজনৈতিক দল প্রতিষ্ঠা করেন।