সাতটি মেগা প্রকল্পে ৩৪ হাজার ২৬৬ কোটি টাকা বরাদ্দ

0
59

বিএনএন টিভি, ন্যাশনাল ডেস্কঃ

২০২০-২১ অর্থবছরের প্রস্তাবিত বাজেটে সাতটি মেগা প্রকল্পে ৩৪ হাজার ২৬৬ কোটি টাকা বরাদ্দ রাখা হয়েছে। এরমধ্যে সর্বোচ্চ বরাদ্দ পেয়েছে রূপপুর পারমাণবিক বিদ্যুৎকেন্দ্র। এই প্রকল্পে ১৫ হাজার ৬৯১ কোটি টাকা বরাদ্দ দেয়া হয়েছে। এছাড়া স্বপ্নের পদ্মাসেতু নির্মাণ প্রকল্পে বরাদ্দ দেয়া হয়েছে পাঁচ হাজার কোটি টাকা।

বাজেটে নতুন এডিপির আকার ২ লাখ ৫ হাজার ১৪৫ কোটি টাকা। এর মধ্যে সরকারের নিজস্ব তহবিল থেকে ১ লাখ ৩৪ হাজার ৬৪৩ কোটি টাকা ও বৈদেশিক সহায়তা থেকে ৭০ হাজার ৫০১ কোটি ৭২ লাখ টাকা খরচ করা হবে। চলতি ২০১৯-২০ অর্থবছরের সংশোধিত এডিপির তুলনায় ১২ হাজার ২২৪ কোটি টাকা বেশি ধরা হয়েছে নতুন এডিপিতে। ফলে নতুন এডিপিতে ৬ দশমিক ৩৪ শতাংশ বেশি বরাদ্দ রাখা হয়েছে।

নতুন এডিপিতে সর্বোচ্চ বরাদ্দ রূপপুর পারমাণবিক বিদ্যুৎকেন্দ্র নির্মাণ প্রকল্পে ১৫ হাজার ৬৯১ কোটি টাকা। দ্রুত উৎপাদনে যেতে বাংলাদেশের সবচেয়ে ব্যয়বহুল এ প্রকল্পে বরাদ্দ বাড়ানো হয়েছে বলে অর্থমন্ত্রী বাজেট বক্তব্যে উল্লেখ করেন।

অর্থমন্ত্রী বলেন, করোনা সংকটের মধ্যেই চলমান পদ্মাসেতু প্রকল্পের কাজ। দেশি-বিদেশি প্রকৌশলীদের চেষ্টায় মুন্সিগঞ্জের মাওয়া প্রান্তে সেতুর ১৯ ও ২০ নম্বর পিলারের উপর ২৯তম স্প্যানটি স্থায়ীভাবে বসানো হয়েছে। এই প্রকল্পে ২০২০-২১ অর্থবছরে ৫ হাজার কোটি টাকা বরাদ্দ রাখা হচ্ছে।

পদ্মাসেতুর সঙ্গে তাল মিলিয়ে এগিয়ে চলেছে পদ্মাসেতু রেল লিংক প্রকল্প। প্রকল্পে কাজ এগিয়ে নিতে নতুন অর্থবছরে ৩ হাজার ৬৮৫ কোটি টাকা বরাদ্দ দেয়া হচ্ছে। এই প্রকল্পে মোট ব্যয় দাঁড়াচ্ছে ৩৯ হাজার ২৪৬ কোটি ৮০ লাখ টাকা।

মেগা প্রকল্পের মধ্যে দোহাজারী থেকে রামু হয়ে কক্সবাজার এবং রামু থেকে মিয়ানমারের কাছে ঘুমধুম পর্যন্ত সিঙ্গেল লাইন ডুয়েলগেজ ট্র্যাক নির্মাণ প্রকল্পে ১ হাজার ৫শ কোটি টাকা বরাদ্দ দেয়া হয়েছে।

এছাড়া বাজেটে মেট্রোরেল-৬ প্রকল্পে ৪ হাজার ৩৭০ কোটি টাকা বরাদ্দ দেয়া হয়েছে।

বাজেটে কক্সবাজারের মহেশখালীর মাতারবাড়িতে নির্মাণাধীন কয়লাভিত্তিক বিদ্যুৎকেন্দ্র নির্মাণে গুরুত্ব দেয়া হয়েছে। প্রকল্পের কাজ এগিয়ে নিতে বাজেটে ৩ হাজার ৬৭০ কোটি টাকা বরাদ্দ দেয়া হয়েছে।

পটুয়াখালীর কলাপাড়া উপজেলার লালুয়া ইউপিতে এগিয়ে চলেছে দক্ষিণবঙ্গের স্বপ্নের প্রকল্প পায়রা গভীর সমুদ্রবন্দর নির্মাণকাজ। এই প্রকল্পে ৩৫০ কোটি টাকা বরাদ্দ দেয়া হয়েছে।