যারা কর্মহীন অবস্থায় আছে, তাদের ঘরে খাবার পৌঁছে দেবে সরকার

0
118

করোনা ভাইরাসের কারণে দীর্ঘমেয়াদী কোন অনিশ্চয়তা সৃষ্টি হলে সেটিও মোকাবিলার প্রস্তুতি নিয়েছে দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা ও ত্রাণ মন্ত্রণালয়। কর্মহীন নাগরিককে ঘরে ঘরে খাদ্য সহায়তা পৌঁছে দিতে নেয়া হয়েছে স্বল্প, মধ্য ও দীর্ঘমেয়াদী পরিকল্পনা। এক্ষেত্রে কোন ধরণের দুর্নীতি হলে ছাড় না দেয়ার হুঁশিয়ারি দেয়া হয়েছে। এদিকে, সরকারের সামাজিক নিরাপত্তা কর্মসূচিসহ বিভিন্ন পরিকল্পনা ঢেলে সাজানোর পরামর্শ দিয়েছেন বিশেষজ্ঞরা।

করোনা ভাইরাসের সংকটকালে দেশজুড়ে সাধারণ ছুটি ঘোষণা করায়, কর্মহীন হয়ে পড়েছে শহর ও গ্রামের অসংখ্য মানুষ। করোনার বিস্তৃতি রোধে সরকারি নির্দেশনা মেনে সবাই ঘরে অবস্থান করায় স্থবির হয়ে পড়েছে রাজধানীসহ পুরো দেশ। এ অবস্থায়, প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশে ভিক্ষুক, ভবঘুরে, দিনমজুর, রিকশাচালক, পরিবহণ শ্রমিক ও চায়ের দোকানদারের মতো কর্মহীন হয়ে পড়া মানুষের দ্রুত তালিকা করে অগ্রাধিকার-ভিত্তিতে খাদ্য সহায়তা দিতে আদেশ জারি করে দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা ও ত্রাণ মন্ত্রণালয়।

দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা ও ত্রাণ মন্ত্রণালয়ের সিনিয়র সচিব মোহাম্মদ শাহ কামাল বলেন, যারা কর্মহীন অবস্থায় আছে, তাদের ঘরে খাবার পৌঁছে দেয়া হয়। দীর্ঘ মেয়াদী কিন্ত বিষয়টি ভাবছি। জুন পর্যন্ত একটা পরিকল্পনায় আছি। যদি প্রয়োজন পড়ে পরবর্তীতেও একটা দীর্ঘ মেয়াদী পরিকল্পনায় আছি।

এদিকে, এ ধরণের সংকটকালে সামাজিক নিরাপত্তা কর্মসূচির পরিধি ও সময় বাড়ানোর পাশাপাশি সরকারের বিভিন্ন পরিকল্পনা ঢেলে সাজানোর পরামর্শ দিয়েছেন বিশেষজ্ঞরা।

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ইনস্টিটিউট অব ডিজাস্টার ম্যানেজমেন্টের পরিচালক অধ্যাপক ড. মাহবুব নাসরীন বলেন, সামাজিক নিরাপত্তা কর্মসূচির আওতায় যারা আছে। এই কোভিট-১৯ দুর্যোগ মোকাবিলার জন্য এর পরিধি আরও বাড়াতে হবে। দুর্যোগের সময় আরও সহিংসতা বেড়ে যায়।

এ পর্যন্ত প্রায় ৪০ হাজার মেট্রিক টন চাল ও সাড়ে ১১ কোটি টাকা বরাদ্দ দেয়ার কথা জানিয়ে, দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা ও ত্রাণ সচিব জানান, সংকট চলাকালে সারাদেশের কর্মহীনদের নিত্য প্রয়োজনীয় পণ্যসহ অর্থ সহায়তাও দেয়া হবে। সংকটকালীন কেউ দুর্নীতির সঙ্গে জড়িয়ে পড়লে নেয়া হবে কঠোর ব্যবস্থা।

দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা ও ত্রাণ মন্ত্রণালয়ের সিনিয়র মোহাম্মদ শাহ কামাল বলেন, চাল, আলু, ডাল, লবণ, তেল দিচ্ছি। এবং অনেক জায়গায় নিত্যপ্রয়োজনী জিনিস কিনার জন্য টাকা দিচ্ছি। ত্রাণ নিয়ে কোন ধরণের দুর্নীতি সহ্য করা হবে না। এবং কেউ যদি এটার মধ্যে জড়িয়ে পড়েন। তাৎক্ষণিকভাবে তাকে ধরে নেয়া হবে।

কর্মহীনদের তালিকা প্রণয়ন থেকে ঘরে ঘরে খাদ্য সহায়তা দেয়ার ক্ষেত্রে স্থানীয় জনপ্রতিনিধি ও জেলা দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা কমিটি সরাসরি কাজ করবে বলেও জানান দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা ও ত্রাণ সচিব।