মোংলা থেকে চুরি হওয়া প্রাইভেটকার ৯দিন পর উদ্ধার

0
186

অনিক চৌধুরী, মোংলা থেকে।।

মোংলা বন্দরের পুরান বাসস্ট্যান্ড থেকে চুরি হওয়া একটি প্রাইভেটকার ৯দিন পর উদ্ধার করেছে পুলিশ। চুরির ঘটনায় জড়িত আন্তঃজেলা গাড়ি সিন্ডিকেট চক্রের তিন সদস্যকে আটক করা হয়েছে। মোংলা উপজেলার সুন্দরবন এলাকার বাশতলা গ্রামের এমদাদ শিকারি রেন্ট এ কারে ভাড়ায় চালাত এই প্রাইভেটকারটি।

পুলিশ জানায়, গত ৮ এপ্রিল বন্দরের শিল্প এলাকার বাসস্ট্যান্ড থেকে নাইন্টি মডেলের সাদা রংয়ের ঢাকা-মেট্ট্র-(ঘ-১১৫২৬২) নাম্বারের একটি প্রাইভেটকার চুরি হয়ে যায়। অভিযোগের সূত্র ধরে বাসস্ট্যান্ড এলাকায় পৌরসভার সিসি ক্যামেরার ফুটেজ দেখে চোর শনাক্ত করে মোংলা থানা পুলিশ। ১৭ এপ্রিল মোংলার কুমারখালী এলাকা থেকে আটক করা হয় গাড়ি ছিনতাই চক্রের অন্যতম সদস্য ঝালকাঠি জেলার রাজাপুর থানার তারাবুনিয়া গ্রামের মোসারেফ হাওলাদারের ছেলে মোঃ জামাল হাওলাদারকে (২৩)। এরপর জিজ্ঞাসাবাদে তার দেয়া তথ্যমতে মোংলা থানার উপ-পুলিশ পরিদর্শক এস আই মোঃ আবদুল আহাদ সঙ্গীয় ফোর্স নিয়ে শুক্রবার রাতে বরিশালের কাউনিয়া এলাকা থেকে উদ্ধার করেন প্রাইভেটকারটি।

ওই সময় চুরির সাথে জড়িত বরিশাল জেলার কাউনিয়া থানার চরবাড়িয়া ৭নং ওয়ার্ডের বাসিন্দা মৃত জব্বার হাওলাদারের ছেলে মোঃ শামিম (৪০) ও ঝালকাঠি জেলার নলচিঠি থানার চৌকাঠী গ্রামের মৃত হাবিবুর রহমানের ছেলে মোঃ মঞ্জু মোল্লাকে (৬০) আটক করা হয়। শনিবার গাড়ি ছিনতাই চক্রের ওই তিন সদস্যকে গাড়িসহ মোংলা থানায় আনা হয় এবং ব্যাপক জিজ্ঞাসাবাদ করে পুলিশ প্রশাসন।

পরে গাড়িটি পুলিশের জিম্মায় রেখে বিকালে অন্য সদস্য আলতাফ ফরাজীর ছেলে গিয়াস উদ্দিন আল মামুন (৩৭) এবং বাগেরহাট জেলার মোড়েলগঞ্জ থানার জিউধারা ৫নং ওয়ার্ডের বাসিন্দা মোসারেফ হাওলাদারের ছেলে মোঃ আল আমিনসহ আরো ২জন অজ্ঞাতনামাকে আসামি করে মামলা দায়ের শেষে ছিনতাই চক্রের ওই তিন সদস্যকে বাগেরহাট আদালতের মাধ্যমে জেল হাজতে পাঠানো হয়।

তদন্তকারী কর্মকর্তা মোংলা থানার পুলিশ কর্মকর্তা আবদুল আহাদ জানান, দেশব্যাপী ওই গাড়ি ছিনতাইচক্রের একটি বড় নেটওয়ার্ক রয়েছে। দেশের বিভিন্ন এলাকায় তাদের সক্রিয় সদস্য রয়েছে।