বিভিন্ন জেলায় অসহায় মানুষদের খাদ্য সহায়তায় সেনাবাহিনী

0
90

করোনা সংক্রমণ রোধে সামাজিক দূরত্ব নিশ্চিতে দায়িত্ব পালনের পাশাপাশি অসহায় মানুষের পাশে দাঁড়িয়েছে সেনাবাহিনীর সদস্যরা। আজও কয়েকটি জেলায় খাদ্য সহায়তা দিয়েছেন তারা। পাশাপাশি দেশের বিভিন্ন স্থানে করোনা পরিস্থিতে কর্মহীন হয়ে পড়া শ্রমজীবী, দুস্থ ও ছিন্নমূল মানুষের মাঝে খাদ্য সামগ্রী বিতরণ করেছেন জনপ্রতিনিধি ও প্রশাসনের কর্মকর্তারা। অসহায়দের পাশে দাঁড়িয়েছে বেসরকারি সংগঠনও।

সামাজিক দূরত্ব নিশ্চিতে প্রশাসনকে সহযোগিতার পাশাপাশি অসহায় ও দুস্থদের পাশে দাঁড়িয়েছে সেনাবাহিনী। এর অংশ হিসেবে শুক্রবার সকালে রাজশাহীতে পদ্মাপাড়ের দরগাপাড়া ও বালুচর এলাকায় দুস্থ পরিবারের মাঝে খাদ্যসামগ্রী বিতরণ করে। এ সময় উপস্থিত প্রতিবন্ধী ও বৃদ্ধদের ঘরে ঘরে ত্রাণ পৌঁছে দেয়া হয়। পরে নগরীর দাসপুকুর ও বহরমপুর এলাকায় আরও দেড় শতাধিক দরিদ্র পরিবারের মাঝে খাদ্যসামগ্রী বিতরণ করেন সেনা সদস্যরা।

কুমিল্লায় বেতনের একটি অংশ দিয়ে দরিদ্র ও কর্মহীনদের মাঝে খাদ্যসামগ্রী বিতরণ করেন সেনাসদস্যরা। সকালে জেলা প্রেসক্লাবের সামনে রিকশা চালকসহ অস্বচ্ছল পরিবারের মাঝে ত্রাণ সহায়তা তুলে দেয়া হয়। চাল,ডাল, তেল ও সবজিসহ এগারটি পণ্য বিতরণ আগামীতেও অব্যাহত থাকবে বলে জানান সেনাবাহিনীর লে. কর্নেল মাহবুব আলম।

গাজীপুরে কর্মহীন দশ হাজার মানুষের মাঝে চাল,ডাল আলুসহ খাদ্য সামগ্রী বিতরণ করেন শ্রীপুরে উপজেলা পরিষদের সাবেক চেয়ারম্যান আব্দুল জলিল। সকাল থেকে উপজেলার ইউনিয়নে ইউনিয়নে গিয়ে এসব বিতরণ করা হয়। খাদ্য সামগ্রী পেয়ে খুশি ঘরবন্দি মানুষ।

ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় সরকারি ও বেসরকারি উদ্যোগে দরিদ্র ও কর্মহীন শ্রমজীবী পরিবারকে খাদ্য সহায়তা দেয়া হয়। সকালে শহরের মধ্যপাড়ায় দেড় হাজার কর্মহীন পরিবারের মাঝে খাদ্য সামগ্রী বিতরণ করেন পৌর কাউন্সিলর কাউছার আহমেদ। এদিন জেলা প্রশাসনের উদ্যোগে সেলুনকর্মী, নির্মাণ শ্রমিক ও জেলে সম্প্রদায়ের ২শো কর্মহীন মানুষের মাঝে ত্রাণ সহায়তা দেয়া হয়।

খাগড়াছড়ির খাগড়াপুর এলাকায় ত্রাণ বিতরণ করেন জেলা পরিষদের সদস্য পার্থ ত্রিপুরা। সামাজিক দূরত্ব মেনে প্রথম দিনে, ৪শ পরিবারকে চাল-ডালসহ নিত্যপ্রয়োজনীয় খাদ্যসামগ্রী তুলে দেয়া হয়। পর্যায়ক্রমে আরও তিন হাজার পরিবারকে ব্যক্তি উদ্যোগে ত্রাণ সহায়তা দেয়ার ঘোষণা দেন তিনি।

চাঁদপুরে শিক্ষামন্ত্রী ডা. দীপু মনির পক্ষ থেকে ত্রাণ বিতরণ করা হয়েছে। শুক্রবার সদর উপজেলার খেরুদিয়া এবং বালুধুম স্কুল মাঠে উপস্থিতি ২ হাজার মানুষের হাতে খাদ্যসামগ্রী তুলে দেয়া হয়। করোনা পরিস্থিতিতে ৬০ হাজার পরিবারকে সহায়তা দেয়া হচ্ছে বলে জানায় স্থানীয় আওয়ামী লীগ।

যশোরে প্রবাসীদের পাঠানো অর্থে কর্মহীন মানুষের মাঝে খাদ্য সহায়তা দেয়া হয়েছে। সকালে ঝিকরগাছা উপজেলার উজ্জলপুরে সামাজিক দূরত্ব বজায় রেখে দুই হাজারের বেশি শ্রমজীবীদের মাঝে চাল-ডালসহ নিতপ্রয়োজনীয় খাদ্যসামগ্রী বিতরণ করা হয়।

নীলফামারীতে ভিক্ষুকদের মাঝে ত্রাণ সহায়তা দিচ্ছে গ্রামীণ ব্যাংক। প্রথমদিন শুক্রবার, সৈয়দপুরে সাড়ে সাতশ’ জনকে এক মাসের খাদ্য সামগ্রী বিতরণ করা হয়। প্রত্যেকেকে ত্রিশ কেজি চালসহ ৬টি পণ্য এবং ৬ শ টাকা দেয়া হয়। পর্যায়ক্রমে ৩ হাজার ১ শ ৫০জন ভিক্ষুককে খাদ্যসহায়তা দেয়া হবে।

এদিকে কর্মহীন হয়ে পড়া দিনমজুর ও হতদরিদ্র পরিবারের মাঝে শাকসবজি ও ইফতার সামগ্রী বিতরণ করেন ফেনীর প্যানেল মেয়র। সার্কিট হাউজের সামনে এ সামগ্রী বিতরণ করেন জেলা প্রশাসক।

পিরোজপুরে কর্মহীন পরিবাবের শিশুদের জন্য শিশুখাদ্য বিতরণ করেছে একটি বেসরকারি সংগঠন। শহরের রাজারহাটে ব্যতিক্রমী এ কার্যক্রমের উদ্বোধন করেন জেলা প্রশাসক। এ সময়, শতাধিক শিশুর মাঝে খাদ্যসামগ্রী বিতরণ করা হয়।

অন্যদিকে, সেচ্ছাসেবী সংগঠনের উদ্যোগে ঠাকুরগাঁওয়ে অসহায় দরিদ্রদের মাঝে বিনামূল্যে সবজি বিতরণ করা হয়। শহরের সমবায় মার্কেট চত্বরে বাজার মুল্যের চেয়ে ৩০ ভাগ কমে নিত্যপ্রয়োজনীয় খাদ্যদ্রব্য বিক্রি করা হয়। এসময় প্রত্যেক ক্রেতাকে বিনামূল্যে সবজি দেয়া হয়।

এছাড়াও দেশের বিভিন্ন স্থানে কর্মহীন হয়ে পড়া শ্রমজীবী, দুস্থ ও ছিন্নমূল মানুষের মাঝে খাদ্য সামগ্রী বিতরণ করেছে জেলা-উপজেলা প্রশাসন, জনপ্রতিনিধি ও বেসরকারি সংগঠন।