ফেসবুকে পোস্ট দেখে রাতেই চাল-ডাল নিয়ে হাজির ডিসির প্রতিনিধিরা

0
138

কদিন আগেই সরকারি রাজেন্দ্র কলেজের একাদশ শ্রেণির বিজ্ঞান বিভাগের শিক্ষার্থী দিল আফরোজ শ্রাবণী ফরিদপুরের ডিসির ব্যতিক্রমধর্মী উদ্যোগ ‘মিট দ্য ডিসি’ অনুষ্ঠানে হাজির হয়েছিলেন। তখন ডিসির কাছ থেকে অনুপ্রেরণা পেয়েছিলেন দেশের জন্য কিছু করতে হবে যার যার অবস্থান থেকে। আর সেই কথাকে স্মরণ করে করোনা ভাইরাস প্রাদুর্ভাবের সময় কর্মহীন হয়ে পড়া ১০টি অভুক্ত পরিবারকে নিয়ে ফেসবুকে পোস্ট দিয়েছিলেন ডিসি অতুল সরকারকে ট্যাগ করে।

সেই পোস্ট দেখে দ্রুত সময়ের মধ্যে ডিসি অতুল সরকার সেই ১০টি অভুক্ত পরিবারের খাদ্য সহায়তা দেয়ার ব্যবস্থা করলেন।

বুধবার (১ এপ্রিল) দিবাগত রাত ১২টার সময় শহরতলীর বায়তুল আমান এলাকার আমিন দোকান গ্রামে ডিসির প্রতিনিধি দল পিডব্লিউওর নির্বাহী পরিচালক মো. হাফিজুর রহমানের নেতৃত্বে একটি টিম সেখানে যান। এ সময় তারা ১২টি পরিবারের হাতে দশ কেজি চাল, এক কেজি ডাল, এক কেজি আলু, এক কেজি লবণ, এক লিটার সয়াবিন তেল ও একটি লাক্স সাবান তুলে দেন।

এ ব্যাপারে প্রতিনিধি দলে থাকা বিএফএফ’র নির্বাহী পরিচালক আনম ফজলুল হাদি সাব্বির বলেন, রাতে ওই পোস্ট দেখে ডিসি স্যার আমাদের আহ্বান জানান রাতের মধ্যেই কিছু করতে পারি কিনা। ডিসি স্যারের আহ্বানে পিডব্লিউওর নির্বাহী পরিচালক মো. হাফিজুর রহমানের নেতৃত্বে আমরা সেখানে যাই। এরপর সেখানে থাকা ১২টি পরিবারের হাতে খাদ্য সহায়তা তুলে দেয়া হয়।

নিচে আফরোজ শ্রাবণীর সেই পোস্টটি হুবহু তুলে দেয়া হলো:
“আসসালামুআলাইকুম, স্যার। আমি দিল আফরোজ শ্রাবণী। সরকারি রাজেন্দ্র কলেজের একাদশ শ্রেণির বিজ্ঞান বিভাগের একজন শিক্ষার্থী।
আমি ৬ষ্ঠ ‘মিট দ্য ডিসি’ অনুষ্ঠানে আপনার একজন প্রতিনিধি হিসেবে গিয়েছিলাম। আমাদের বাড়ি আমিন দোকান, উত্তর সাদিপুর, বায়তুল আমান।
সাম্প্রতিক করোনা ভাইরাসের ভয়াবহ করাল গ্রাসের প্রভাব আমাদের এই এলাকাতে গভীরভাবে পড়েছে। এখানে বেশকিছু হতদরিদ্র পরিবার বাস করে এদের মধ্যে ১০টি পরিবারের অবস্থা খুবই করুণ। এই ১০টি পরিবারের মধ্যে সত্তরোর্ধ্ব ৩জন, মূক ও বধির প্রতিবন্ধী ১জন, ১জন কোমায় আছেন বাকিরা পিতৃহীন এবং অসহায়।”