করোনা পরিস্থিতি মোকাবেলায় দানের খাতায় সবাইকে ছাড়িয়ে গেলেন শাহরুখ

0
98

করোনা পরিস্থিতি মোকাবেলায় নিম্নআয়ের মানুষের পাশে দাঁড়িয়েছেন অনেক বলিউড অভিনেতা। তবে, সেখানে দেখা যায়নি শাহরুখ খানকে। এ নিয়ে ‘কিং খান’র সমালোচনায় মুখর হয়েছিলেন অনেকে। কিন্তু সবার মুখ বন্ধ করে দিয়েছেন শাহরুখ। করোনা পরিস্থিতিতে দানের হিসেবে সবাইকে ছাড়িয়ে গেছেন তিনি। তার মতো বিশাল পরিকল্পনা নিয়ে মাঠে নামেননি কেউ।

শাহরুখ খান তার ক্রিকেট টিম নাইট রাইডার্স ও প্রযোজনা সংস্থা রেড চিলিজের হয়ে পিএম এবং মহারাষ্ট্রের মুখ্যমন্ত্রী আর বাংলার মুখ্যমন্ত্রীর ত্রাণ তহবিলে মোটা অঙ্কের টাকা দিচ্ছেন।

এছাড়াও শাহরুখের ‘মীর ফাউন্ডেশন’ পক্ষ থেকে ৫০ হাজার পিপিই কিট দেয়া হচ্ছে পশ্চিমবঙ্গ আর মহারাষ্ট্রের হাসপাতালগুলোতে। আলাদা করে আরও বাড়তি অর্থ দিচ্ছেন তারা যেন আগামী দিনগুলিতে বাংলা ও মহারাষ্ট্রের হাসপাতালগুলিতে ভেন্টিলেটরেরও অভাব না হয়।

এছাড়াও ‘এক সাথ’ নামের একটি সংস্থার সঙ্গে যৌথ উদ্যোগে মীর ফাউন্ডেশন করোনার জেরে বেকার হয়ে যাওয়া মুম্বাইয়ের প্রায় সাড়ে ৫ হাজার দিন আনি দিন খাই পরিবারকে রোজ দু’বেলা খাওয়ানোর দায়িত্ব তুলে নিয়েছে। অন্তত একমাস খাদ্য সরবরাহ করা হবে তাদের।

পাশাপাশি, ২ হাজার প্লেট খাবার রোজ পৌঁছে যাবে হাসপাতাল আর জরুরি পরিষেবার সঙ্গে যুক্ত মানুষদের কাছে। যার সমস্ত ব্যায়ভার বহন করবেন শাহরুখ খান নিজে।

এখানেই শেষ নয়! মুম্বাই পুলিশের সঙ্গে যৌথ উদ্যোগে তার সংস্থা রোজ ৩ লাখ খাবারের প্যাকেট বিলি করবে ভবঘুরে আর ভিক্ষুকদের মধ্যে। যেন রাতে অভুক্ত থেকে যেন কাউকে ঘুমোতে যেতে না হয়! এছাড়াও দিল্লির ২৫০০ দিন মজুরদের পরিবারগুলিতে প্রতি সপ্তাহে অন্তত আগামী ১ মাস বিনামূল্যে রেশন বিলি করার দায়িত্ব নিয়েছেন শাহরুখ।

সোশ্যাল মিডিয়ায় তিনি লিখেছেন, প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি, মুখ্যমন্ত্রী উদ্ধব ঠাকরে, মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়, অরবিন্দ কেজরিওয়াল এবং অন্যান্য রাজ্যের নেতারা যেভাবে করোনার মতো মহামারির মোকাবেলা করছেন তা এক কোথায় আসাধারণ। আমরা প্রাথমিকভাবে দিল্লি, কলকাতা, মুম্বাই– এই তিন শহরকে ফোকাস করছি। এই ক্ষেত্রে যা প্রয়োজন আমরা করব।

তিনি জানিয়েছেন, করোনা মোকাবেলায় প্রয়োজনীয় কিট, মাস্ক বিতরণের কাজ ইতিমধ্যে শুরু করেছে তার সংস্থা।

স্বভাবতই, শাহরুখের এই পরিকল্পনা নিয়ে প্রশংসায় মেতেছেন নেটিজেনরা। বলা হচ্ছে, ‘কিং খান’ কিং-এর মতোই কাজ করেছে।