Bangladesh News Network

কঠোর লকডাউনের দ্বিতীয় দিনেও অনড় মোরেলগঞ্জ পৌরসভার মেয়র

0 5,171

মোমিনুল ইসলাম মনি, বিশেষ প্রতিনিধিঃ

করোনার অতিমাত্রায় সংক্রমন ও মৃত্যু কমাতে সরকার ঘোঘিত কঠোর লকডাউন বাস্তবায়ন করতে দ্বিতীয় দিনেও অনড় মোরেলগঞ্জের মেয়র এ্যাডভোকেট মনিরুল হক তালুকদার।

আজও সরকারের নির্দেশনা মোতাবেক মোরেলগঞ্জে কঠোর লকডাউন বাস্তবায়নে সকাল থেকেই পৌরসভার কাউন্সিলদের সাথে নিয়ে শহর ও শহরতলির বিভিন্ন স্হানে তিনি নিজে চুপসারে খোলা রাখা দোকানপাট এবং অগোচরে চলমান যানবাহন কঠোর হস্তে বন্ধ করেছেন। এছাড়া অকারনে ঘোরাঘুরি করা লোকজনকে বুঝিয়ে বাড়ীতে পাঠাতে সক্ষম হয়েছেন।

আজও সাধারন মানুষদের সচেতনতা বৃদ্ধিতে তিনি প্রতিটি ওয়ার্ডে মাইকিং করিয়েছেন। এছাড়া আজ তিনি হতদরিদ্র পরিবারের মাঝে খাদ্য সামগ্রী বিতরন করেছেন।

এ বিষয়ে জানতে চাইলে মেয়র মনিরুল হক বিএনএনকে বলেন, সাধারন মানুষের জিবন বাঁচানোর জন্যই শেখ হাসিনার সরকার ও প্রশাসন এরকম কঠোর অবস্হান নিয়েছেন। কারন সরকার এবং জনপ্রতিনিধিদের দায়িত্বই হলো জনগনকে ভালো রাখার ব্যাবস্হা করা। সরকারের বা প্রশাসনের কঠোর আচরন শুধুই মাত্র আমাদেরকে সুস্হ রাখার জন্য। কিন্তু কিছু মানুষ আসলেই করোনার ভয়াবহতার বিষয়ে একেবারেই সচেতন নন।

তারা মাস্ক না পরে যে যার ইচ্ছে মতো ঘোরাফেরা করছে। এ কারনে তারা তাদের পরিবার ও এলাকার মানুষের জন্য চরম বিপদ ডেকে আনতে পারে। আমরা তাদেরকে সচেতন করার প্রচেষ্টা অব্যাহত রেখেছি। দরকার হলে এরচেয়ে আরো কঠোর আইনানুগ ব্যাবস্হা গ্রহন করা হবে। তবুও মোরেলগঞ্জ পৌরসভাকে করোনা মুক্ত করতে হবে। আর এটা না করা পর্যন্ত আমিসহ মোরেলগঞ্জ পৌরসভার সকল কাউন্সিলর ও কর্মকর্তা এবং কর্মচারীবৃন্দ অন্তত আন্তরিকভাবে কাজ করছেন।

তিনি আজ সকালে ঘটে যাওয়া একটি ঘটনার বর্ননা করতে গিয়ে বলেন, সকাল সাড়ে সাতটা – আটটার দিকে লকডাউন বাস্তবায়নের জন্য বাসা থেকে বের হবার সময়, আমার পাঁচ বছরের ছোট ছেলে মহান ওর মা কে বলছিল, বাবার সাহস অনেক বেড়ে গেছে। করোনার মধ্যে এতো সকালে সকালে কোথায় যায়? শুনে মুচকি মুচকি হাসছিলাম।
দুপুর বারোটার পর থেকে মোরেলগঞ্জ বাজার, থানা রোড, উপজেলা চত্বর, মুদি পট্টি সহ সমস্ত জায়গা ঘোরার পরে মনটা অনেক অনেক ভালো লাগছিল এইভেবে যে, কষ্ট সার্থক হয়েছে।

আর মনে মনে বলছিলাম, মহান এই সময়ে সাহস নিয়ে সকালে সকালে বাইরে যাওয়া ছাড়া অন্য কোন পথ যে খোলা নেই বাবা। মানুষকে বাঁচাতে কঠিন লক ডাউন বাস্তবায়ন যে করতেই হবে।

এ বিষয়ে মোরেলগঞ্জের সচেতন নাগরিক ফোরামের আহবায়ক আতিক হাসান বলেন, মোরেলগঞ্জ পৌরসভার অভিবাবক মেয়র এ্যাডভোকেট মনিরুল হক তালুকদার একজন প্রথমসারির সাহসী করোনা যোদ্ধা। তিনি অবিরাম চেষ্টা করছেন মোরেলগঞ্জ পৌরসভাসহ সম্পূর্ণ মোরেলগঞ্জ উপজেলাকে করোনা মুক্ত এলাকা হিসেবে প্রতিষ্ঠিত করতে। তার বুদ্ধিদীপ্ত কৌশল ও তৎক্ষনাত ব্যাবস্হাগ্রহনের কারনে মানুষ আগের থেকে অনেক বেশি সচেতন হয়েছেন। তিনি শুধু মোরেলগঞ্জই নয়, সমগ্র বাগেরহাট জেলাবাসির জন্য আশির্বাদ।

সরেজমিনে দেখা যায়, গতকালের থেকে আজ শহরে লোকজনের আনাগোনা ছিলো অনেক কম। যানবাহনও তেমন চলেনি। তবে কিছু দোকানপাটের ঝাপ বন্ধ থাকলেও, পিছন থেকে বেচাকিনা চলছে।

Comments
Loading...
%d bloggers like this: