Bangladesh News Network

‘কঠোর’ লকডাউনের তৃতীয় দিন ঢাকায় ৬২১ জন গ্রেপ্তার

0 5,536

করোনাভাইরাস নিয়ন্ত্রণে জারি করা ‘কঠোর’ লকডাউনের তৃতীয় দিন ঢাকায় ৬২১ জনকে গ্রেপ্তারের কথা জানিয়েছে পুলিশ। বিধিনিষেধ না মানায় এ দিন রাজধানীতে ৮৫৫ গাড়ির বিরুদ্ধে মামলা করেছে পুলিশ। মামলায় ১৯ লাখ ২২ হাজার টাকা জরিমানা করা হয়।

শনিবার সন্ধ্যায় ঢাকা মহানগর পুলিশের গণ্যমাধ্যম বিভাগ থেকে জানানো হয় ৬২১ জনকে গ্রেপ্তার ছাড়াও আরো ৩৪৬ জনকে জরিমানা করা হয়েছে।

কঠোর লকডাউনের তৃতীয় দিনে রাজধানীর বিভিন্ন এলাকায় মানুষের চলাচল কিছুটা বেড়েছে। গত দুই দিনের তুলনায় রাজধানীর সড়কে গাড়ি ও লোকজনের চলাচল আজ কিছুটা বেশি। পুলিশের চেকপোস্টের কারণে কোথাও কোথাও দেখা গেছে যানজটও।তবে জরুরি প্রয়োজন ছাড়া যারা বের হচ্ছেন, তাদের পড়তে হয়েছে শাস্তির মুখে।

সকাল থেকেই বিভিন্ন মোড়ে আইনশৃঙ্খলা বাহিনী, সেনাসদস্যদের তদারকি রয়েছে চোখে পড়ার মতো। বিধি না মানায় এরইমধ্যে ৪৭ জনকে আটক করেছে ডিএমপির তেজগাঁও বিভাগ।

সকাল থেকেই নানা কারণ দেখিয়ে অনেকে বের হচ্ছেন ঘর থেকে। গন্তব্যে যেতে অনেকে দেখাচ্ছেন নানা অজুহাত।বিভিন্ন জরুরি সেবা প্রতিষ্ঠানের পরিবহনও ছিল যাত্রী বোঝাই। গত দুই দিনের তুলনায় ঢাকার শ্যামলী, কলাবাগান, পান্থপথ, ধানমন্ডি, বাংলামোটর, ফার্মগেট, খিলগাঁও, মগবাজার এলাকায় রিকশা ও ব্যক্তিগত গাড়ি কিছুটা বেশি চোখে পড়েছে। কারওয়ান বাজারে মানুষের উপস্থিতি ছিল বেশি।

রাজধানীর বিভিন্ন এলাকায় আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর তল্লাশিচৌকি বসানো হয়েছে। রাস্তায় ব্যারিকেড দেয়া হয়েছে। প্রধান সড়কের তুলনায় রাজধানীর অলিগলিতে মানুষের জটলা কিছুটা বেশি চোখে পড়েছে।

নিত্যপ্রয়োজনীয় পণ্যের দোকান ও কাঁচাবাজারগুলোতে শনিবার মানুষের উপস্থিতি ছিল অনেক বেশি। অলিগলিতেও স্বাস্থ্যবিধি উপেক্ষা করে ভিড় দেখা গেছে।

পল্টন, মালিবাগ, আজিমপুর, মিরপুর, ধানমণ্ডিসহ রাজধানীর সব প্রধান সড়কে যানবাহনের চাপও বেড়েছে। নিউ মার্কেট, নীলক্ষেত, সায়েন্স ল্যাবরেটরি, এলিফ্যান্ট রোড, হাতিরপুল এলাকায় রিকশা চলাচল বেড়েছে। পাশাপাশি চলছে কিছু ব্যক্তিগত গাড়ি। হাতিরপুল বাজারে নিত্য প্রয়োজনীয় পণ্য কিনতেও মানুষের ভিড় দেখা গেছে।

প্রগতি সরণি, রামপুরা, কুড়িল বিশ্বরোড এলাকায় গত দুই দিনের তুলনায় কিছুটা মানুষ বেড়েছে। গাড়ি কম থাকলেও সড়কে রিকশার সংখ্যাও বেড়েছে।

রাজধানীর বিভিন্ন পয়েন্টে ভ্রাম্যমান আদালত পরিচালনা করছেন জেলাপ্রশাসকের নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেটরা। বাড়তি নজরদারি ছিল পুলিশের। এছাড়া সেনা বাহিনীর মহড়াও ছিল চোখে পড়ার মতো। চেকপোস্টগুলোয় গাড়ি ও লোকজন থামিয়ে জানতে চাওয়া হচ্ছে বের হওয়ার কারণ। জরুরি প্রয়োজন ছাড়া কেউ বের হলে বাসায় ফেরত পাঠানো হচ্ছে। এছাড়া অফিগামীদের পরিচয়পত্র চেক করে দেখা হচ্ছে। ব্যাক্তিগত গাড়ি ও মোটরসাইকেল থামিয়ে প্রয়োজনীয় কাগজ পরীক্ষা করছে আইন শৃঙ্খলা রক্ষা বাহিনী।

করোনার সংক্রমণ মোকাবিলায় দেশজুড়ে সাত দিনের কঠোর লকডাউনের দ্বিতীয় দিনে গতকাল সন্ধ্যা ৭টা পর্যন্ত কারণ ছাড়া ঘরের বাইরে বের হওয়ায় ২১৩ জনকে ২ লাখ ১৬ হাজার টাকা জরিমানা করা হয়েছে। আটক করা হয়েছে ৩২০ জনকে। এর আগের দিন আটক করা হয় ৫৫০ জনকে।

Comments
Loading...
%d bloggers like this: